এই মুহুর্তে পাওয়া..
Home / বিনোদন / ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪’-এর ৩টি স্বীকৃতিই হারাচ্ছে ‘বৃহন্নলা’

‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪’-এর ৩টি স্বীকৃতিই হারাচ্ছে ‘বৃহন্নলা’

অল ক্রাইমস টিভিঃ গল্প চুরির অভিযোগে ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪’-এর ৩টি স্বীকৃতিই হারাতে যাচ্ছে মুরাদ পারভেজ পরিচালিত ‘বৃহন্নলা’। পরিবর্তন ডটকমের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এমন তথ্য।
সাম্প্রদায়িক গোঁড়ামি ও অসহিষ্ণুতার কাহিনী নিয়ে নির্মিত ‘বৃহন্নলা’ শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার ও শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচিয়তা বিভাগে জাতীয় পুরস্কার লাভ করে। কিন্তু পুরস্কার ঘোষণার পরপরই অভিযোগ উঠে কাহিনী চুরির।

কলকাতার লেখক সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজের গল্প ‘গাছটি বলেছিল’-এর সাথে পুরোপুরি মিল রয়েছে ‘বৃহন্নলা’র। এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে মুরাদ পারভেজকে শোকজ নোটিস দেওয়া হয়।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘মুরাদ শোকজ নোটিসের জবাব দিয়েছেন। তার জবাব তদন্ত করে দেখার জন্য তিন সদস্যের কমিটি করে দেওয়া হয়েছে।’

মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী কমিটিতে আছেন বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক হারুন-অর-রশিদ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেলিভিশন অ্যান্ড ফিল্ম স্টাডিজের প্রধান ড. এজেএম শফিউল আলম ভূঁইয়া । কিন্তু দুজনই পরিবর্তনের কাছে সদস্য থাকার ব্যাপারটি অস্বীকার করেন।

হারুন-অর-রশীদ বলেন, ‘কমিটি করে দেওয়ার ব্যাপারে আমি বলেছিলাম। কিন্তু কমিটিতে আমি কিংবা অন্য কে আছেন তা জানি না। তবে যদি কমিটি হয় ও তদন্তে মুরাদ দোষী সাব্যস্ত হন তাহলে তো অবশ্যই তাকে শাস্তি পেতে হবে। ২০১১-১২ অর্থ বছরের সরকারি অনুদানের ছবি এটি। তখন খুব সম্ভবত ২৯ লাখ টাকা পেয়েছিল মুরাদ। এখন সে দোষী সাব্যস্ত হলে অবশ্যই পুরো টাকা স্ট্যাম্প অনুযায়ী সুদে-আসলে ফেরত দিতে হবে।’

কোন কোন শাখার পুরস্কার বাতিল হবে? উত্তরে হারুন-অর-রশিদ বলেন, ‘এখন এটা জুরি বোর্ডের বিষয়। তারাই সিদ্ধান্ত নেবেন, শুধু কাহিনীকারের নাকি সবগুলো পুরস্কার বাতিল করা হবে।’

অন্যদিকে শফিউল আলম ভূঁইয়া জানান, সরকারি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে পুরস্কার বাতিলের ঘোষণা দেওয়া হবে। ২০ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী পুরস্কার বিতরণ করবেন আনুষ্ঠানিকভাবে। সিদ্ধান্ত যা হওয়ার এর আগেই হবে।

তবে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সূত্রটি পরিবর্তন ডটকমকে জানান, “বৃহন্নলা’ ছবির সব শাখার পুরস্কার বাতিলের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে কমিটি।”

এদিকে সম্প্রতি মুরাদ পারভেজের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তথ্যমন্ত্রী বরাবর অভিযোগ জানান পশ্চিমবঙ্গের কথাসাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় ও দেবেশ রায়। হাসানুল হক ইনু বরাবর লিখিত অভিযোগপত্রে বলা হয়, “আমরা সবিস্ময়ে লক্ষ করলাম ‘বৃহন্নলা’ চলচ্চিত্রের কাহিনীটি পশ্চিমবঙ্গের প্রয়াত কথাসাহিত্যিক সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজের ‘গাছটি বলেছিল’ গল্প থেকে সম্পূর্ণ আত্মসাৎ করা হয়েছে। এমনকি বৃহন্নলা নামটিও নেওয়া হয়েছে ওই গল্প থেকেই। এ ধরনের কুম্ভিলকবৃত্তিকে জাতীয় পর্যায়ে সম্মানিত করা হলে, তা যেমন বাংলাদেশের পক্ষে গৌরবের বিষয় হবে না, তেমনই দুই বাংলার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ক্ষেত্রেও তা অনভিপ্রেত।” তারা ওই চলচ্চিত্রে সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজের নাম উল্লেখ ও কাহিনী স্বত্ব হিসেবে তার পরিবারকে ভারতীয় মুদ্রায় দেড় লাখ রুপি দেওয়ার কথাও উল্লেখ করেন। এ ছাড়া দেবজ্যোতি মিশ্রের একটি গানের নকল করার অভিযোগও রয়েছে ‘বৃহন্নলা’র বিরুদ্ধে।

টেলিভিশন নাটকের পরিচিত নির্মাতা মুরাদ পারভেজের দ্বিতীয় সিনেমা ‘বৃহন্নলা’। তার প্রথম সিনেমা ‘চন্দ্রগ্রহণ’ও নির্মিত হয় সৈয়দ মুস্তাফা সিরাজের গল্পে। যা সিনেমায় উল্লেখ আছে। চন্দ্রগ্রহণও বিভিন্ন বিভাগে জাতীয় পুরস্কারসহ একাধিক স্বীকৃতি লাভ করে।

Print Friendly

উপদেষ্টা সম্পাদক : আরিফ নেওয়াজ ফরাজী বাদল

সম্পাদক : হাবিবুল্লাহ মিজান

মোবাইল : ০১৫৩৪৬০৪৪৭৬, ই-মেইল : mizandeshi@gmail.com